ma sex story bangla

ছেলের ঠোটে মায়ের ঠোট 12

ma sex story bangla ব্যাটাছেলেদের মত ওর বৃহত্‍ মাংসল স্তন মর্দন করে চলেছে। রমা মাঝে মাঝেই উনাকে এভাবে আদর করে, কী রকম অবশ অবশ লাগে।

নিভাদি তোমার ইচ্ছা করে না ব্যাটাছেলের সঙ্গে শুতে? আমি তো বাপু স্বামিরটা মুখের মধ্যে না নিলে থাকতেই পারি না তবে তোমার ছেলের মত কাউকে পেলে আর কিছু চাইনা।

নিভা: তুই কিন্তু ভিশন অসভ্য হয়ে উঠেছিস তবে স্বীকার করতে বাধা নেই আমার ছেলের তোর মত সেক্সি বউ পেলে শরীরের খিদেটা ভালই মিটিয়ে দিতে পারতিস।

রমা দুহাতে নিভা কে জড়িয়ে ধরে বলে “ছেলেকে তো পাচ্ছি না ছেলের সেক্সি বড় বড় দুদুওলা মাযের সঙ্গে শুলেও কম আনন্দ্য পাব না ma sex story bangla

সত্যি কথা বলব সেদিন ব্রা ব্লাউজ খোলা অবস্থায় তোমাকে দেখার পর আমার নিজের শরীর নিয়ে সব গর্ব মাটিতে মিশে গেছে তোমাকে আমাকে কাছে পেলে সব পুরুষ মানুষই বিছানায়ে পাগল হয়ে উঠবে

কিন্তু সেদিন মেয়ে হয়েও মনে হল তোমাকে কাছে পেলেও আমার কম তৃপ্তি হবে না সে তুমি আমাকে লেসবিয়ান ভাবো আর যাই ভাবো, বিছানার সুখের ব্যপারে ছেলে হোক অথবা তোমার মত রসালো মেয়েছেলে হোক

কোনও ফারাক নেই জামা কাপড় ছেড়ে আমার সঙ্গে একবার বিছানায় চলো, তোমার শরীরটা এত আদর করব যে এতদিন কোনওব্যাটাছেলের সাথে না শোবার কষ্টটা ভুলিয়ে দেব।

নিভা: “ইসস চ্ছার আমাকে, এখুনি ছেলে এসে পড়বে তুই যেভাবে আমার দুদু টিপছিস দেখলে কী ভাববে বলতো? “আচ্ছা নিভাদি সত্যি কথা বলবে ছেলে তোমাকে জড়িয়ে ধরে আদর করে না?

ও মা করবে না কেন? তোমার তখন অন্য রকম চিন্তা আসে না? হাজার হোক একটা জওয়ান ছেলের শরীর, আমি হলে কিন্তু একটু আধটু হলেও সুযোগটা হাতছাড়া করতাম না। ma sex story bangla

জওয়ান ছেলে এই রকম চল্লিশ সাইজের দুদু ওলা মাযের শরীরটা জড়িয়ে ধরে বেশিখন থাকলেই প্তকৃতির নিয়মেই উত্তেজিত হয়ে উঠবে আর বয়সকা মা হয়ে তুমি আরেকটু ঘনিষ্ট হলেই তোমার ছেলে তোমাকে আর কাছে পেতে চাইবে।

নিভা: তুই কী রে ছেলেকে প্রথমে তুই আদর করবি বললি এখন আমাকে ওর সাথে জড়িয়ে প্রেম করার কথা বল্ছিস। দরজার পেছন থেকে কথা গুলো শুনে রতন বেশ উত্তেজিত হয়ে ওঠে।

রমা: ঠিক বলছি নিভাদি একবার ছেলেকে নিজের শরীরের মধ্যে চেপে ধরে বউয়ের মত ঢলা ঢোলি করো সংকোচের বাধন টা ভেঙে দাও জওয়ান

ছেলে তোমার মত এমন সেক্সি মাযের মেয়েলি শরীরটাকে আরো কাছে পাবার, মাযের বুকে জমা মধু খাবার জন্য মনে মনে পাগল হয়ে উঠবে।এমনিই তুমি নিচে ব্রা পড়না ma sex story bangla

বন্ধ্য ঘরের মধ্যেজওয়ান ছেলে এত্ত বড়ো বড়ো সলিড দুদু ওলা বয়সকা মাযের নরম শরীরটা জড়িয়ে ধরে একটু আধটু আদর শুরু করলে, তুমিও যদি প্রশ্রয় দাও আমি নিশ্চিত তোমার ছেলে তোমার দুদুতে হাত দেবে শাড়ি

ব্লাউজ এর ওপর দিয়ে মুখ ঘষা ঘোষি করবে তোমার বড় বোঁটা দুটো শাড়ি ব্লাউজ ঢাকা অবস্থায় স্পষ্ট বোঝা যায় জওয়ান ছেলে ঠিক বয়সকা মাযের রসালো বোঁটাযে ঠোঁট বসিয়ে দেবে।

রমার কথা শুনে নিভার শরীরটা সির সির করে ওঠে গত কয়েক ঘণ্টাএ নিজের ছেলের সাথে উদ্দাম ভালোবাসার ছবি গুলো ভেসে ওঠে এর মধ্যেই ছেলে যে বয়সকা

মাযের নধর শরীরটার স্বাদ নিয়েছে বেশ কয়েক বার মনের সুখে পিসেছে ব্যাটাছেলের কামনা নিয়ে, তিনিও যে জওয়ান ছেলের শরীরটা কামনার তৃপ্তিতে ভরিয়ে দিয়েছেন ma sex story bangla

সেটা তো কেউ জানে না ব্লাউজ খুললে বৃহত্‍ ফর্সা মাংসল স্তনের উপর ছেলের কামার্ত দংশনের চিহ্ন ছড়িয়ে আছে আজ রাতেও তো আবার জওয়ান ছেলে মাযের ভরাট

পয়োধরে ব্যাটা ছেলের খিদে নিয়ে বয়সকা মাযের মেয়েলি শরীরটা জড়িয়ে ধরে ভালবাসবে গোপন অঙ্গে বার বার শক্ত পৌরুষ টা সারা শরীরটা সংগমের আরামে আরামে ভরিয়ে তুলবে কথাগুলো ভাবতেই যোনিটাভিজে ওঠে।

সত্যি বলেছিস রতনটা ঘরের মধ্যে আজকাল প্রায়ই জড়িয়ে ধরে চুমু খায় রমা উত্তেজিত হয়ে ওঠে “তোমায়ে বলেছি না মাযের এত্ত বড়ো দুদুর ছোয়া পেয়ে তোমার ছেলে ভেতরে ভেতরে গরম হয়ে উঠেছে সত্যি করে বলো

কোথায়ে কোথায়ে চুমু খেয়েছে? দুদু সমেত নিজের বুকের মধ্যে জড়িয়ে ধরে আদর করেছে না? ঠিক এই ভাবে? রমা দু হাতে নিভাকে জাপটে ধরে দুজন বৃহত্‍ দুদু ওলা

মেয়েছেলের স্তনের পাহাড় পরস্পর পিসতে থাকে উমম অসভ্য মেয়ে” নিভা অস্ফুট স্বরে বলে ওঠে “এই নিভাদি ছেলে মাযের বড়ো মেনা দুটো আদর করতে চায চায়নি? ma sex story bangla

আমার তো বিশ্বাসী হচ্ছে না।“ধ্যাত অতো কিছু নয়” নিভা এই নিশিধ্য সম্পর্কের ব্যাপারটা ভেবে ভেতরে ভেতরে বেশ উত্তেজিত হয়ে ওঠেন অর্ধেক সত্যি মিশিয়ে আলোচনাটা চালিয়ে যান

থামতে দিতে চান না রমার হাত টা নিভা দেবীর তলপেটের নিচে অসভ্য আদর করে দুজন বয়সকা মেয়েছেলে ভেতরে ভেতরে যৌন খিদেয় জ্বলে ওঠে।

মাঝে মাঝেই ছেলে জড়িয়ে ধরলে ছাড়তে চায় না সামনা সামনি জড়িয়ে ধরে আমার দুটোর যা বড় সাইজ ওর বুকের নিচে পুরোটাই পেষাই হয় মাযের বড়ো দুদুর ছোয়ায়ে ছেলের

যে আরাম লাগে বুঝি, আমারো যে ভাল লাগেনা তাও নয় তাই বাধা দিইনা।“ রমা উত্তেজনায়ে শায়াটা ভিজিয়ে ফেলে রমার হাত টা নিভার গোপন ত্রিভুজটা শাড়ি সায়ার উপর দিয়ে খামচে ধরে “উমম দুষ্টু মেয়ে

আমারটা কিভাবে চেপে ধরেছে” “নিভাদি আমার আর তর সইছে না তারপর” “তারপর আবার কী? বয়সকা মাযের সারা গায়ে হাত বুলিয়ে আদর করে মাঝে মাঝে ma sex story bangla

পাজামা সমেত নিজের ব্যাটাছেলের জিনিসটা আমার তলপেটের নিচে চেপে চেপে ধরে কানের কাছে মুখ নিয়ে এসে ফিস ফিস করে বলতে থাকে “মামনি তোমাকে এভাবে

জড়িয়ে ধরে আদর করতে ভীষণ ভাল লাগে বার বার আরো কাছে পেতে ইচ্ছে করে” আমি বলি “উম্মদুষ্টু ছেলে মা কে এভাবে আদর করতে নেই কেউ দেখলে কী ভাববে ইসস

যে ভাবে আমাকে বুকের মধ্যে জাপটে ধরে আছিস একমাত্র ব্যটাছেলের মেয়েছেলেদের প্রেম করার সময় এভাবে আদর করে” রতন কানের লতিতেচুমু খেতে খেতে বলে উফ মামনি

তোমাকে এভাবে দু হাতে জড়িয়ে ধরে রাখলে কী ভীষণভাল লাগে ছাড়তেই ইচ্ছে করে না, তুমি যাই বল আমি তোমাকে এভাবে জড়িয়ে আদর করব যতক্ষণ আমার ইচ্ছা করবে ঘরের মধ্যে আমি আমার রুপসী

মাযের শরীরটা জড়িয়ে ধরে যেভাবেই আদর করি কেউ জানবেনা” “ধ্যাত! ব্লাউজ এর নিচে ব্রা পর্যন্ত পরা নেই এভাবে আদর করলে যে কেউ ভাববে বয়সকা মাযের শরীর টা জড়িয়ে ধরে জওয়ান ছেলে নিশিধ্য প্রেম করছে

আগে দেখবে তারপর তবে তো ভাববে, ব্লাউজ খোলা অবস্থায়ে শুধু শাড়ি পড়া অবস্থায়ে তোমাকে বিছানাযে নিয়ে গিয়ে আদর করলেও কেউ কিছুই জানবে না ma sex story bangla

ওহ বাহ বা এখনি আমাকে জড়িয়ে ধরলে ছাড়তে চাস না ব্লাউজ খোলা অবস্থায়ে আমাকে বিছানায়ে কাছে পেলে তুই অন্যান্য ব্যাটাছেলেদের মত পাগল হয়ে উঠবি আমি তোকে সামলাতে পারব না।

ইস নিভাদি নিজের ছেলেকে এত কাছে পেয়েও ছেড়ে দিলে?

ও মা সেকি ছাড়ার পাত্র? কানের কাছে মুখ নিয়ে এসে একদম সরাসরি বলে বসলো “মামনি ব্লাউজ খুলে একবার তোমার এই ভীষণ বড় বড় দুদু দুটো চূষতে দেবে? ছেলের ঠোটে মায়ের ঠোট 11

তুমি আর আমি ছাড়া কেউ জানতেই পারবেনা। ছোট বেলায় তো কতবার দুদু খাইয়েছ।একবার দুহাতে ধরে, তুমি তো জানো তোমার চল্লিশ সাইজের দুদু এক হাতে ধরা যাবে না, কিছুখন চুষেই ছেড়ে দেব রতন আশ্বস্ত করে।

বুঝতেই পারছিলাম জওয়ান ছেলে মাযের ভীষণ বড় দুদু তে মুখ দেবার জন্য অস্থির হয়ে উঠেছে একবার ব্লাউজ খুলে আদর করতে দিলে আমাকে সবসময়ে পাবার জন্য নেশা ধরে যাবে তবু শেষ চেষ্টা করলাম ma sex story bangla

উমম দুষ্টু ব্লাউজ শাড়ি পড়ে আমাকে যেভাবে আদর করছিস কর দুদু টেপা টেপি করতে চাস তাও কর আমি কিছু বলব না কিন্তু কেউ যেন জানতে না পারে, লক্ষী সোনা এর বেশি কিন্তু নয় কথাটা শেষ করার আগেই

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.